বস্তিতে দলীয় কর্মীর বাড়িতেই আলুপোস্তো ডাল ভাত তৃপ্তি করে খেলেন আভাস রায় চৌধুরী

District News Durgapur Paschim Bardhaman

নিউজ ফ্রন্টলাইনার ওয়েব ডেস্ক,১৩ এপ্রিল:
কলাবাগান বস্তির গরীব মানুষ ষষ্ঠী বাউরির বাড়ির ছোট্ট একফালি বারান্দা। এটাই ছিল বর্ধমান দুর্গাপুর লোকসভা কেন্দ্রের বাম প্রার্থী আভাস রায় চৌধুরীর কাছে শনিবারের তপ্ত দুপুরের এক চিলতে শীতল পড়শ। সকাল আটটা থেকে শুরু হ‌ওয়া শহরের নানা প্রান্তে প্রচার অভিযানের বিরতি হয় কলাবাগান বস্তিতে। ফলে আর অন্য কোথাও নয় এ বস্তিতেই এক পার্টিকর্মীর বাড়িতে শাক,আলুপোস্ত, বিউলির ডাল বেগুন ভাজা আর টক দই দিয়ে পরিতৃপ্তির খাওয়া। বাড়ির মেঝেতে আসন পেতে বাড়ির গৃহিণীর আভাসদার জন্য ছিল এই আন্তরিক আয়োজন। আর ষষ্ঠী বাউরির আভাস দাও একবার চেটেপুটে খেয়ে সেই আয়োজনকে সম্পূর্নতা দিলেন।

সাংবাদিকরা আভাস রায় চৌধুরীকে প্রশ্ন করলেন বিজেপির অনুকরনেই কি এইভাবে দলীয় কর্মীদের বাড়িতে পাত পেরে বসে খাওয়ার আয়োজন? আভাস রায় চৌধুরীর সপ্রতিভ উত্তর এরা আমাদের স্বাভাবিক মিত্র। অন্যান্য দিনেও আমি প্রচারের শেষে দলীয় কর্মীদের বাড়িতে অথবা পার্টি কমিউনে খেয়েছি। এটা কোনো নতুন ঘটনা নয়। আজ হঠাৎ সংবাদ মাধ্যমের প্রতিনিধিরা এটা সামনে দেখে নতুন ভাবছেন।

সাংবাদিকদের আরও প্রশ্ন ছিল এই যে একজন বাম প্রার্থী একেবারে একজন সাধারণ মানুষের বাড়িতে বসে খাওয়া দাওয়া করলেন। তার ফলে শাসকদলের কাছে খেসারত দিতে হবে না তো ষষ্ঠী বাউরিকে? আভাস রায় চৌধুরীর সপ্রতিভ উত্তর ওরা কি করবে সেটা ওদের ব্যপার। আমাদের দলীয় কর্মীরা এক পরিবারের মত। ফলে আমি তো সেই পরিবারে আসবই। তবে এটুকু বলতে পারি এইসব গুন্ডামি করে ওদের শক্তি যে কমছে যেটা ওরা নিজেরাই বুঝতে শুরু করেছে।

গ্রীষ্মের দাবদাহের মধ্যেই এত বড় লোকসভা কেন্দ্র কার্যত পায়ে হেঁটে ঘোরা। শরীরের ক্লান্তি মেটাতে একটু ছায়ায় বসে বিশ্রাম। আবার পথ চলা। এটাই দুর্গাপুর বর্ধমান লোকসভা আসনের বামপার্থী আভাস রায় চৌধুরীর এখনকার প্রতিদিনের রুটিন। টার্গেট একটাই মানুষের কাছে পৌঁছানো। তার জন্য মাইলের পর মাইল হাঁটা। কখনো মিছিলে কখনো পদযাত্রা কখনো আলাপ চারিতা। এতবড় লোকসভা এলাকাটা কার্যত পায়ে হেঁটে মানুষের কাছে পৌঁছেছেন আভাস। আপাদমস্তক একেবারে সাদামাটা জীবন যাপন করা আভাস রায় চৌধুরী। লোকাল ট্রেনেই লোকসভার একপ্রান্ত থেকে অন্য প্রান্তে যাচ্ছেন। কোন চাকচিক্য নেই পোষাকে। ঢিলে পাজামা সুতির পাঞ্জাবি আর অমলিন হাঁসি এটাই তো আভাস রায় চৌধুরী।

শনিবার সকাল থেকে দুর্গাপুরে বিধান নগর, ফুলঝোড়, হরিবাজার এলাকায় প্রচার করেন আভাস রায় চৌধুরী। কথা বলেন শহরের বুকে বন্ধ পড়ে থাকা একাধিক কারখানার কর্মীদের সঙ্গেও ।

কখনো বুকে টেনে কখনো প্রণাম করে শিশু, কিশোর থেকে বৃদ্ধ সবার একেবারে কাছের মানুষ-মনের মানুষ হয়ে ওঠার আকুতি তার। দৃঢ় দৃপ্ত কন্ঠস্বরে আভাস রায় চৌধুরীর দাবি “আমাদের জয় নিশ্চিত”।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *