ঘটনা বহুল উত্তপ্ত ৫ম দফার ভোট! অর্জুন,প্রসুন,লকেট,গার্গী নিয়ে জমজমাট পঞ্চম দফা

General Election 2019 News West Bengal

নিউজ ফ্রন্টলাইনার ওয়েব ডেস্ক,৬ মে: সকাল থেকেই উত্তপ্ত ছিল পঞ্চমদফার ভোট গ্রহণ। বিভিন্ন বুথে ছাপ্পা ভোট দেওয়ার অভিযোগ তথা শাসকদলের বিরুদ্ধে বিরোধী দলের এজেন্টদের বুথে ঢুকতে না দেওয়ায় ভুড়ি ভুড়ি অভিযোগ উঠেছে। তারমধ্যে নজর কাড়া ঘটনা হল কেন্দ্রীয় বাহিনীর হাতে তৃণমূল কংগ্রেস প্রার্থী প্রসূন ব্যানার্জি মার খেয়েছেন বলে অভিযোগ। তৃনমূলের দুষ্কৃতীদের আক্রমণে ঠোঁট কেটেছে বিজেপি প্রার্থী অর্জুন সিংয়ের , ইভিএম ভাঙার অভিযোগে এফ আই আর হল লকেটের বিরুদ্ধে।

হাওড়ার তৃণমূল কংগ্রেস প্রার্থী প্রসূন ব্যানার্জিকে নিগ্রহের অভিযোগ উঠল কেন্দ্রীয় বাহিনীর বিরুদ্ধে। এমনকি তার আপ্ত সহায়ক ইন্দ্রনীল চ্যাটার্জীকেও মারধর করা হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। ঘটনাটি ঘটেছে শিবপুরের বালটিকুরির একটি বুথে। এই বুথে ভোট কেমন চলছে তা দেখতে গিয়েছিলেন তৃণমূল কংগ্রেসের প্রার্থী প্রসূন ব্যানার্জি। প্রসুন বাবুর অভিযোগ “আমি সেখানে গিয়ে সব ঠিক আছে কিনা খতিয়ে দেখতে গেলে কেন্দ্রীয় বাহিনীর একজন জওয়ান আমাকে গালিগালাজ করতে শুরু করেন। কেন সে গালিগালাজ করছে তা জানতে গেলে সে আমাকে নিগ্রহ করে,হাত পেছনে ঘুরিয়ে দেয়া হয়, তারপর সিঁড়ি দিয়ে ঠেলে দেওয়া হয়, এমনকি মারধরও করা হয়।

তৃণমূল কর্মীদের অভিযোগ বিজেপিকে ভোট দিতে বলেছিল আধাসেনা।আর সেই কারণেই বুথের বাইরে আধাসেনা সঙ্গে বচসায় জড়িয়ে পড়তে দেখা যায় তৃণমূল কংগ্রেস প্রার্থী প্রসূন ব্যানার্জিকে। বচসা চলাকালীনই প্রার্থীকে মারধর করা হয় বলে অভিযোগ।

অন্যদিকে এদিন ভোটগ্রহণ শুরু হতেই উত্তপ্ত হয় বারাকপুর। ওই কেন্দ্রের মোহনপুরের একটি বুথে ভোটারদের ভোটদানে বাধা দেওয়ার অভিযোগ শুনে ঘটনাস্থলে যান বিজেপি প্রার্থী অর্জুন সিং। সেখানে আক্রান্ত হন তিনি। অর্জুন সিং জানান তৃণমূলের গুন্ডারা বিজিপির এজেন্টকে বসতে দিচ্ছে না। যদিও তৃণমূল এই অভিযোগ উড়িয়ে দিয়ে উল্টে অর্জুন সিং এর বিরুদ্ধে পাল্টা অভিযোগ করেছে। বিজেপির দাবি সকালবেলায় বুথ এজেন্টের বুথে যাওয়ার সময় তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতীরা তাদের উপর হামলা চালায়। এই হামলায় আহত হন বেশ কিছু বিজেপি কর্মী। ঘটনার খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গেলে তাকে লক্ষ্য করে এলোপাথারি ইট ছোড়া হয়। ইটের ঘায়ে কেটে যায় ওনার ঠোট। এই ঘটনায় রিপোর্ট তলব করেছে নির্বাচন কমিশন।এরমধ্যে অর্জুন সিং এর মাটিতে পড়ে যাওয়ার ছবি ভাইরাল হয়েছে।প্রখ্যাত নাট্যকার চন্দন সেনের উপর আক্রমনের ঘটনা ঘটে তৃণমূলী দুষ্কৃতীয় বিরুদ্ধে।

আমডাঙ্গা সহ ব্যারাকপুরের একাধিক বুথে সি পি আই(এম) এর পোলি এজেন্ট উঠিয়ে দেয় তৃনমূল। একাধিক বুথ ক্যাম্প ভাঙ্গচুর করা হয় বামেদের।বাম প্রার্থী গার্গী চ্যটার্জীকে ছুঁটে যেতে দেখা যায় আমডাঙ্গাতেও।

অন্যদিকে ইভিএম ভাঙচুরের ঘটনায় বিজেপি প্রার্থী লকেট চট্টোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে এফআইআরের নির্দেশ দিয়েছে নির্বাচন কমিশন। তার উপস্থিতিতে তার অনুগামীরা বুথে ঢুকে ইভিএম ভেঙেছে বলে অভিযোগ। সোমবার ধনেখালির ১৬৯ নম্বর বুথে এই ঘটনা ঘটে বলে জানা গেছে।

এ দিন সকাল থেকেই রনংদেহি মূর্তি ছিল বিজেপি প্রার্থী লকেট চট্টোপাধ্যায়ের। হুগলির ৩ কেন্দ্র শ্রীরামপুর, হুগলি, আরামবাগে ভোট হচ্ছে। যেখানেই গোলযোগের খবর পেয়েছেন সেখানেই বাইক বাহিনী নিয়ে পৌঁছেছেন লকেট। বেলা১১ টা নাগাদ ১৬৯ নম্বর বুথে তিনি ভুয় ভোটার ধরেছেন বলে দাবি করেন। তার অভিযোগের ভিত্তিতে ওই বুথের তৃণমূল এজেন্টকে বার করে দেন প্রিসাইডিং অফিসার। লকেটের দাবি ও বুথে অবাধে ছাপ্পা ভোট দিচ্ছিল তৃণমূলের ওই এজেন্ট। সক্রিয় ভূমিকা পালন করেনি কেন্দ্রীয় বাহিনী বলেও তার অভিযোগ। এরপরই ওই এজেন্টকে বুথের বাইরে যেতে বলার হুমকি দেন লকেট। সকাল থেকে ধনেখালিতে তৃণমূলের বিরুদ্ধে ছাপ্পা ভোটের অভিযোগ তুলেছিলেন তিনি। এরপর দুপুর দুটো নাগাদ ধনেখালি তে ব্যাপক উত্তেজনা ছড়ায় বিজেপি তৃণমূল সংঘর্ষে।সেই সময় বুথে ঢুকে ইভিএম ভাংচুরের অভিযোগ ওঠে বিজেপি প্রার্থীর বিরুদ্ধে। ঘটনাস্থলে লকেটকে ঘিরে বিক্ষোভ দেখাতে থাকেন তৃণমূলের কর্মীরা। ভাঙচুর করা হয় তার গাড়িও বলে অভিযোগ উঠেছে। তখনই নির্বাচন কমিশন লকেটের বিরুদ্ধেএকদিকে যেমন এফআইআর দায়েরের নির্দেশ দেন। তেমন তার গাড়ি ভাংচুরের ঘটনাররিপোর্ট তলব করেছেন। বিকেল চারটে নাগাদ হুগলি জেলা শাসকের অফিসের সামনে ধর্নায় বসেন লকেট চ্যাটার্জি। তার অভিযোগ মাংস ভাত খাইয়ে প্রিসাইডিং অফিসারদের হাত করেছে তৃণমূল। যার জেরে বিরক্ত হয়ে সাধারণ মানুষের ইভিএম ভাঙচুর করেছে। ইভিএম ভাঙচুরের সঙ্গে বিজেপির কোন যোগ নেই।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *