বলিভিয়া রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে প্রাথমিক ফলাফলে এককভাবে সংখ্যাগরিষ্ঠ বামপন্থী দল মাস

International News

নিউজ ফ্রন্টলাইনার ওয়েব ডেস্ক, লা পাজ,১৯ শে অক্টোবর:দীর্ঘ টালবাহানার পর বলিভিয়ায় নির্বাচনের মুখ দেখতে চলেছে, গতবছর সে দেশের বামপন্থী সরকার উৎখাতের পর দেশের শাসন ক্ষমতা দখল নেয় সে দেশের সেনাবাহিনী। তাকে সমর্থন জানায় সে দেশের দক্ষিণপন্থী দল, তারপর থেকেই রাজনৈতিক চিত্র পরিবর্তন ঘটে যায় দেশে। সামাজিক বৈষম্য তৈরী হয় গোটা বলিভিয়া অঞ্চলজুড়ে,গণতান্ত্রিক আন্দোলনের উপর আক্রমণ নেমে আসে।

প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি ইভো মোরালেস কেও দেশ থেকে নির্বাসন করা হয় আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংগঠন থেকে শুরু করে বিভিন্ন দেশের সামাজিক সংগঠন চাপ সৃষ্টি করে সেদেশের শাসকদের উপর অবিলম্বে নির্বাচনী প্রক্রিয়ায় অংশ নেওয়ার জন্য। অবশেষে গতকাল সংগঠিত হয়ে গেল রাষ্ট্রপতি নির্বাচন।

বামপন্থী দল মাস অভিযোগ করেছে নির্বাচনকে প্রভাবিত করার লক্ষ্যেই দেশের সরকার সেনাবাহিনীকে ব্যবহার করছে, বিভিন্ন পোলিং বুথে ও গরমিলের অভিযোগ আসছে । গোটা নির্বাচনকে পর্যবেক্ষণ করতে হাজির হয়েছে আন্তর্জাতিক পোল মনিটরিং সংস্থা, তাদের রিপোর্টের ভিত্তিতে তৈরি হবে এই নির্বাচন প্রক্রিয়া বৈধ কিনা। 

বাধা-বিপত্তিকে অতিক্রম করেই বামপন্থী দল মাস জনপ্রিয়তার শিখরে পৌঁছেছে গতবছর অগণতান্ত্রিকভাবে সরকার উৎখাত কে দেশের মানুষ মেনে নেয়নি তা প্রাথমিক তথ্যে উঠে আসছে।একজিট পোলের ফল অনুযায়ী এককভাবেই মাস জিততে চলেছে অর্থাৎ ইভো মোরালেসের দল দেশের ক্ষমতায় আবার আসতে চলেছে। এবারের নির্বাচনে আবার বাজিমাত করতে চলেছে প্রায় ৪৫ শতাংশ ভোট নিয়ে ।সরকারিভাবে এখনো ভোটের ফলাফল প্রকাশ করা হয়নি কার মুখে হাসি ফুটবে শেষ পর্যন্ত তার জন্য অপেক্ষা করে আছে বলিভিয়ার সহ দক্ষিণ আমেরিকার দেশ গুলি।

জয়ের খবর ছড়িয়ে পড়তেই দেশ বাসীকে অভিনন্দন জানিয়েছেন ইভো মোরালেস এক টুইট বার্তায় বলেন জনগণের ইচ্ছার জয় আসছে।এমএএস-আইপিএসপিতে এক দুর্দান্ত সাফল্য দেশের প্রগতিশীল শ্রেণীর স্বার্থ রক্ষা হবে। এখন আমরা জনগণের কাছে সম্মান ও স্বাধীনতা ফিরিয়ে আনতে চলেছি।

যে পাঁচজন এবারের নির্বাচনে প্রতিদ্বন্ধিতা করছেন তাদের পরিচয় :ক্রেমোস জোটের প্রতিনিধিত্বকারী ডানপন্থী প্রার্থী লুইস ফার্নান্দো কামাচো। তিনি সান্তা ক্রুজ এর নাগরিক সম্প্রদায়ের সাবেক রাষ্ট্রপতি। তিনি সাধারণত ডানপন্থী হিসাবে চিহ্নিত করা হয়।

কার্লোস মেসা, ডানপন্থী নিওলিবারাল যিনি কমুনিদাদ সিউদাদানা জোটের প্রতিনিধিত্ব করছেন। তাকে ডানপন্থী প্রার্থীদের মধ্যে মধ্যপন্থী হিসাবে বিবেচনা করা হয়। বলিভিয়ার অনেক লোক তাকে কাপুরুষোচিত রাজনীতিবিদ হিসাবেও দেখেছেন, তিনি আগে রাষ্ট্রপতি থাকাকালীন চাপের মুখে পদত্যাগ করেছিলেন।

-ফেলিশিয়ানো মামানী, বলিভিয়ার ন্যাশনাল অ্যাকশন পার্টি (প্যান-বিওএল) প্রতিনিধিত্ব করছেন। সহকর্মী নেতা রুথ নিনার পাশাপাশি চলমান একজন খনি কর্মী, তার বিরুদ্ধে অভিযোগ করা হয়েছিল যে খননকারীদের একটি গ্রুপের অংশ ছিলেন যিনি ২০১৬ সালে স্বরাষ্ট্র উপমন্ত্রী রোডল্ফো ইলানেসকে হত্যা করেছিলেন বলে অভিযোগ করা হয়েছিল। প্রমাণের অভাবে তাকে কর্তৃপক্ষ কর্তৃক মুক্তি দেওয়া হয়েছিল।

-চি হিউন চুং “ফ্রেঞ্চ প্যারা লা ভিক্টোরিয়া” এর প্রার্থী। দক্ষিণ কোরিয়ার গোয়ানজজু থেকে আগত অভিবাসী, তিনি একজন ধর্মপ্রচারক খ্রিস্টান যিনি “মৌলবাদী” হিসাবে চিহ্নিত হয়েছেন। তিনি বলিভিয়ার প্রোটেস্ট্যান্টদের বিপুল পরিমাণ সমর্থন পেয়েছিলেন এবং খ্রিস্টান ডেমোক্র্যাটিক পার্টির প্রতিনিধিত্বকারী সর্বশেষ নির্বাচনের জন্য রাষ্ট্রপতি হয়েছিলেন, কমপক্ষে ৮% ভোট অর্জন করেছেন এবং তৃতীয় স্থানে এসেছেন।

-লুইস আরস ক্যাটাকোরা সেই প্রার্থী যে এমএএস-আইপিএসপি বলিভিয়ার সমাজতান্ত্রিক রাষ্ট্রপতি হিসাবে ইভো মোরালেসকে নিযুক্ত করার দাবি জানিয়েছেন। মোরালেসের মন্ত্রিসভায় অর্থনীতির মন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেছেন, বলিভিয়া ইভোর শাসনে বহু জাতীয়করণ, সামাজিক কর্মসূচি এবং অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির পিছনে তিনি অন্যতম রূপকার হিসেবে গণ্য হন। তিনি এই অঞ্চলের অন্যতম সেরা অর্থনীতিবিদ হিসাবে গণ্য হচ্ছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *