দ্বিধাবিভক্ত ইসিআই

News

নিউজ ফ্রন্টলাইনার ওয়েব ডেস্ক, ১৮ মে: বারবার নির্বাচনী আচরণবিধি ভঙ্গের অভিযোগ উঠেছে তাদের বিরুদ্ধে। তবুও কেন নরেন্দ্র মোদি ও অমিত শাহকে ক্লিনচিট দেওয়া হচ্ছে? এই প্রশ্ন তুলেছেন বিরোধীরা। কিন্তু এবার প্রশ্নে তুঙ্গে উঠল নির্বাচন কমিশনারদের মতবিরোধ। শেষ দফা লোকসভা নির্বাচনের ঠিক আগের দিন, অন্যতম কমিশনার অশোক লাভাসার অভিযোগ, তিনি এই ক্লিনচিটের বিরোধিতা করেছেন। কিন্তু, তাঁর মত গ্রাহ্য করা হচ্ছে না। এমনকী, তাঁর মত নথিবদ্ধও করা হয়নি। সেই কারণে তিনি কমিশনের বৈঠক এড়িয়ে গিয়েছেন।

বর্তমানে মুখ্য নির্বাচন কমিশনার পদে রয়েছেন সুনীল অরোরা। বাকি দুই কমিশনার পদে রয়েছেন সুশীল চন্দ্রা ও অশোক লাভাসা। এই পরিস্থিতিতে মুখ্য নির্বাচন কমিশনার সুনীল অরোরা জানিয়েছেন, এই বিতর্ক অর্থহীন। কারণ, কমিশনের নিয়ম অনুযায়ী মদভেদ থাকতেই পারে। কিন্তু সংখ্যাগরিষ্ঠ মতকেই কমিশন সর্বদা গ্রহণ করে।

অরোরা এই কথা বললেও, বিষয়টিকে সহজ ভাবে মানতে নারাজ বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলো। এমনিতেই বিরোধীরা বারবার অভিযোগ করছেন, কমিশন পক্ষপাতিত্ব করছে। এবার লাভাসার অভিযোগ কার্যত তাঁদের বক্তব্যেই সিলমোহর দিল বলে বিরোধীরা মনে করছেন। কংগ্রেসের মুখপাত্র তথা আইনজীবী রণদীপ সিং সুরজেওয়ালা বলেন, ‘কমিশন পক্ষপাতিত্ব করছে। মোদি সরকার দেশের একের পর এক গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠানকে ধ্বংস করছে। লাভাসার অভিযোগ তারই প্রমাণ।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *