পুরুলিয়ার জমিতে আজ লাল হুঙ্কার জনপ্লাবনে

District News

নিউজ ফ্রন্টলাইনার ওয়েব ডেস্ক,পুরুলিয়া,২ রা ফেব্রুয়ারি:একদা লাল ঝান্ডার দুর্গ পুরুলিয়া ধীরে ধীরে সেই রং হারিয়েছে, সেই জায়গায় ২০০৭ থেকে শুধুই রক্তস্রোত দেখেছে এলাকার মানুষ।মাওবাদীদের নৃশংস আক্রমনের শিকার হতে হয়েছিল বামপন্থীদের বহু মানুষের মৃত্যুর মিছিলে পরিবর্তনে আসে মা মাটি মানুষের সরকার।সেই দীর্ঘ আট বছরে প্রতারিত মানুষের মিছিল বেড়েছে বিভ্রান্ত হয়েছে বহু মানুষের পরিবর্তনের জন্য গেরুয়া আকড়ে ধরতে চেয়েছে পুরুলিয়ার বিস্তীর্ণ অঞ্চলে তৃণমূলের সন্ত্রাস কে পরাজিত করে গেরুয়া রঙে রাঙিয়েছে পঞ্চায়েত ।কিন্তু কয়েক মাসের মধ্যেই স্বপ্ন হলো এলোমেলো দেশের নাগরিকত্ব প্রমাণের ফরমান।সেই লালঝান্ডার সৈনিকরাই নামলো পথে লড়াইয়ের স্লোগানে উন্মুক্ত হলো মন।কাছে টেনে নেওয়ার আবেগ ছড়িয়ে পড়লো।সেই আবেগ এবং বিজেপি এর ধর্ম বিভাজনের রাজনীতির বিরুদ্ধে রাশমেলার মাঠ লালঝান্ডার আবেগে ভাসলো।

দুপুর থেকেই মানুষের মিছিলের অভিমুখ ছিল রাশ মেলার মাঠ,সমাবেশে এসেছে দীর্ঘ পদযাত্রা করে আদিবাসী রমণীরা।কমিউনিস্ট পার্টির আন্দোলনের শতবর্ষ পালনের বার্তা নিয়ে হেটে এসেছেন দীর্ঘ পথ দুইদিন ধরে।

জনপ্লাবনে সভায় তখন বক্তব্য রাখছেন দীর্ঘদিনের প্রাক্তন সাংসদ বাদুদেব আচারিয়া তিনি বলেন দেশ আজ সংকটে তার থেকে সংকটে এই রাজ্য।যেখানে গণতন্ত্র বার বার আক্রান্ত,যেখানে উগ্র হিন্দুত্যবাদীদের জন্য জায়গা তৈরি হচ্ছে সারদা নারদ দুর্নীতির সাথে আপোষ করে সেই রাজ্য থাকে সংকটে।বামেরা যে অবস্থা থেকে চলে এসেছে ধীরে ধীরে আরো সংকট ঘনীভূত হয়েছে উন্নয়ন কে ক্লাব কেন্দ্রিক করে রাজ্যের বেকারদের সঙ্গে প্রতারণা করছেন।এর বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ লড়াই করে মানুষের মুক্তির পথ প্রশস্ত করতে হবে।

সমাবেশে বক্তব্য রাখেন কৃষক নেতা অমিয় পাত্র ,তিনি বলেন দেশের অন্নদাতারা সংকটে সেই সংকটের কেন্দ্রে দেশের সরকারের জন বিরোধী নীতি।এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে সম্মিলিত ঐক্যের মাধ্যমে।

সমাবেশে বক্তব্য রাখেন মহম্মদ সেলিম তিনি বলেন দেশের মানুষের ভাগ করতে চাইছে সিএ এবং এন আর সি এর মাধ্যমে ।দেশ রক্ষা করতে এই কালাকানুন রুখতে হবে।মানুষের সম্মিলিত ঐক্য ব্রিটিশ কে যখন পেছনে সরতে হয়েছে এই সরকার ও সরবে।রাজ্যের তৃণমূল দলের দ্বিচারিতা নীতির তীব্র সমালোচনা করেন। পুরুলিয়া এর মানুষ কে বলেন বামফ্রন্ট সরকারের আমলে বাংলার মানুষ কে ভাবতে হয় নি ধর্ম ও জাতে এই সরকার মানুষের ন্যূনতম অধিকার ছিনিয়ে নিয়ে এখন এই বিভেদের রাজনীতিতে উৎসাহিত করছে।একদিকে গণতন্ত্র বিপন্ন আরেজদিকে দেশের সংবিধান সংকটে দেশ রক্ষার লড়াইয়ে সার্বিক ঐক্য গড়ে উঠলে মানুষের কাঙ্খিত জয় আসা সম্ভব।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *