জন্মদিনে সুরকার মুরারী রায়চৌধুরী

District News

নিউজ ফ্রন্টলাইনার ওয়েব ডেস্ক,২৩ শে নভেম্বর,গান ও থিয়েটার নিয়ে ৫০ বছর পার করে দিয়েছে মানুষটা অনেক আগেই।আজ তাঁর শুভ জন্মদিনে শুভেচ্ছা।মজ্জায় ও রক্তে মিশে থাকা যে সঙ্গীতকে মুরারী রায়চৌধুরী সন্তান হিসেবে দত্তক নিয়েছ সে সঙ্গীত তাঁকে পিতৃস্নেহে আগলে রাখুক,সুস্থ রাখুক, নীরোগ রাখুক আমরণ।১৯৪৫ সালের ২৩শে নভেম্বর আজকের দিনটিতে কলকাতায় জন্মগ্রহণ করেন বিখ্যাত গায়ক,সুরকার, সঙ্গীত রচয়িতা এবং নাট্যকর্মী মুরারি রায়চৌধুরী।পিতা হারানচন্দ্র রায়চৌধুরী এবং সুযোগ্য সহধর্মিণী গুণী দাপুটে অভিনেত্রী নন্দিতা রায়চৌধুরী।বাংলা নাটকের সুর ও আবহ সঙ্গীত সৃষ্টিতে

ধারাবাহিকভাবে পরীক্ষানিরীক্ষার ভেতর দিয়ে অতিবাহিত হয় মুরারি রায়চৌধুরীর গানযাপন।উচ্চাঙ্গ সঙ্গীতের শিক্ষা শ্যামল চক্রবর্তীর কাছে,লোকসঙ্গীত হেমাঙ্গ বিশ্বাসের কাছে এবং বছর তিনেক গীত-গজল-ভজন ইত্যাদি শিক্ষা করেছেন সতীনাথ মুখোপাধ্যায়ের কাছে।বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন দলে গণসঙ্গীতে অংশগ্রহণ করেছেন তিনি।অল্প বয়সে সংগীতে,যন্ত্ৰবাদনে প্রতিশ্রুতি লক্ষ করে প্রথম তাঁকে নাটকের গানে সুরারোপের দায়িত্ব দেন নান্দনিকের সিধু ভট্ট্যাচার্য তাঁর চাঁপাডাঙ্গার মেলা নাটকে ১৯৬৩ সালে।প্রথম উল্লেখযোগ্য কাজ এক্ষণ প্রযোজিত অথ ধনপতি কথা নাটকে।প্রায় ৪০০ টিরও বেশী নাটকে আবহ কিংবা সংগীতের কাজ করেছেন তিনি।নিজস্ব দল না থাকার সুবাদে সব দলেরই কাছের মানুষ মুরারি রায়চৌধুরী।

তাঁর উল্লেখযোগ্য কাজগুলি হলো খড়ির গণ্ডি,ফুটবল,মুদ্রারাক্ষস,হে সিন্ধুসারস,আকরিক,জন্মদিন,শূদ্রায়ন,ভবম চলেছে যুদ্ধে,দিশা,বিথান,পুনরুত্থান,নটী কিরণশশী,রাংতার মুকুট,একটি রাজনৈতিক হত্যা,একযুগ,জলদিশা,
অভিমুখ,চলচ্চিত্তচঞ্চরী,দহন,সধবার একাদশী,যদিও স্বপ্ন,একদিন স্বপ্নে,অভিযান,সোক্রেতেস,হত্যারে,কবির,
দংশন,ভিয়েতনাম,শ্বেত সন্ত্রাস,গাজী সাহেবের কিসসা,দিশা,একা এবং একা,মার্চেন্ট অব ভেনিস,
তখন বিকেল,ঘরে ফেরা,যদি,কেনারাম
বেচারাম,দর্পণে শরৎশশী,বৃষ্টি বৃষ্টি,দায়বদ্ধ,অন্তরাল,অন্ধযুগের মানুষ,অপারেশনভোমরাগড়,রামনিধি,স্বপ্নচর,প্রায় ৬টি নটী বিনোদিনী এবং হিন্দি নাটক সুতুরমুর্গ ইত্যাদি।

রাজ্য নাট্য আকাদেমির বলিদান নাটকেও প্রশান্ত ভট্ট্যাচার্যর সঙ্গে যুগ্মভাবে কাজ করেছেন তিনি।সিপিটি র পুতুল নাটক আজব দেশ এর সুর সংযোজনাও তাঁরই।শ্রেষ্ঠ নাট্যকার সুরকার হিসেবে পশ্চিমবঙ্গ নাট্য আকাদেমি পুরস্কার পান তিনি ১৯৮৯ সালে। লেবেদফ পুরস্কার পেয়েছিলেন ১৯৯১ সালে। সংগীত নাটক আকাদেমি,দিল্লি Govt. পুরস্কার পেয়েছিলেন ২০১২ সালে নাট্য সংগীতের জন্য।আর সম্প্রতি গিরিশ ঘোষ পুরস্কার পেয়েছেন পশ্চিমবঙ্গ সরকারের হাত থেকে ২০১৮ সালে। পশ্চিমবঙ্গ নাট্য আকাদেমির সদস্য হয়েছিলেন তিনি ২০০২ সালে।উক্ত আকাদেমি আয়োজিত কর্মশিবিরে প্রশিক্ষক হিসাবে আমন্ত্রিত হন।এছাড়াও রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয় বহিরাগত পরীক্ষক হিসেবে তাঁকে নিয়োগ করেন।তাঁর প্রকাশিত গ্রন্থ “নাটকের গান” ও “জীবনের গান” দুটি মূল্যবান সংকলন।মুরারি রায়চৌধুরী দুটো নাটকও লিখেছেন।একটি “ফুল ফুটুক ঘুম ভাঙুক” এবং অপরটি “উৎসব”। সম্প্রতি এসময়ের সর্বজন শ্রদ্ধেয় নাট্য সংগীতকার মুরারি রায়চৌধুরী কৃত নাট্য সংগীতের (১৯৭৩-২০১৭) বাছাই করা ৭৭ টি গানের সংকলন সহ চারটি সিডি এবং একটি বই প্রকাশিত হয়েছে যা সংগ্রহে রাখার মতন………..
সংগৃহিত-রজত মল্লিক

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *