এই বাজেট মোদী সরকার আরও একটি জুমলা, কংগ্রেস ও বাম নেতাদের প্রতিক্রিয়া

News Political

নিউজ ফ্রন্টলাইনার ওয়েব ডেস্ক, ১ ফেব্রুয়ারি,২০১৯:
এই বাজেটের ফলে সমাজের সব স্তরের মানুষ লাভবান হবেন। অন্তর্বর্তী বাজেটের প্রশংসা করে এমনটাই দাবি করেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। তিনি বলেন,” নির্বাচনের পর যে বাজেট আসবে এটা শুধুমাত্র তার ট্রেলার। দেশকে উন্নয়নের পথে নিয়ে যাবে এই বাজেট।”

প্রধানমন্ত্রী দাবি করেছেন এই বাজেটে লাভবান হয়েছেন ১২ কোটি কৃষক। আয়কর ছাড়ার উর্ধ্বসীমা বাড়ায় লাভবান হয়েছেন তিন কোটি করদাতা। এই বাজেটে প্রধানমন্ত্রী কৃষাণ সম্মান নিধি প্রকল্পে কৃষকদের বছরে ৬ হাজার টাকা দেওয়ার কথা ঘোষণা করেছে কেন্দ্র সরকার। যাদের ২ হেক্টরের কম জমি রয়েছে,তাদেরকে বছরে তিন ধাপে ৬ হাজার টাকা দেওয়া হবে। এই টাকা সরাসরি কৃষকদের ব্যাংক অ্যাকাউন্টে ট্রান্সফার করা হবে বলে ঘোষণা করেছে পীযূষ গোয়েল।

কিন্তু বাজেটের সমালোচনায় মুখর হয়েছেন কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী। তাঁর পাল্টা দাবি, এই বাজেটে কৃষকদের অপমান করা হয়েছে। তিনি টুইটে লিখেছেন, “বছরের ৬ হাজার টাকা মানে দিনে মাত্র ১৭ টাকা। এই টাকা দিয়ে কৃষকদের অপমান করা হচ্ছে। মোদিজি আপনাদের অহংকারী সরকার পাঁচ বছরে কৃষকদের জীবন ধ্বংস করেছে।”

অন্যদিকে প্রাক্তন অর্থমন্ত্রী চিদাম্বরাম এই বাজেটকে “ধৈর্যের পরীক্ষা” বলে কটাক্ষ করেন। তার কথায়,” আমার স্মৃতিতে থাকা অন্তর্বর্তী বাজেট গুলির মধ্যে আজকের বাজেট বক্তৃতা দীর্ঘতম। এই বাজেট আসলে ভোট অন অ্যাকাউন্ট নয়, অ্যাকাউন্টস ফর ভোট।” অন্তর্বর্তী বাজেটের নামে পূর্ণাঙ্গ বাজেট পেশ করে আসলে ভোট প্রচার সারলো কেন্দ্র। আর্থিক স্থিতাবস্থা যে আরও দুর্বল হয়েছে এই বাজেট বক্তৃতা তার প্রমান। চিদাম্বরামের প্রশ্ন বেকারত্বের সংখ্যা যেখানে এদেশে গত ৪৫ বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ সীমা ছুঁয়ে ফেলেছে সেখানে বৃদ্ধি কিভাবে অটুট থাকতে পারে”

সিপিএমের সাধারণ সম্পাদক সীতারাম ইয়েচুরি বলেছেন, আবার একবার এই বাজেটের মাধ্যমে মানুষকে বোকা বানাতে চেষ্টা করছে বিজেপি। তার দাবি কাগজে লেখা কোন কিছুই কার্যকর হবে না। ২০১৪-য় ক্ষমতায় আসাতেই ১০কোটি কর্মসংস্থান,১০০টি নতুন স্মার্ট সিটি, কৃষকদের আয় দ্বিগুণ,ও প্রত্যেকের অ্যাকাউন্টে ১৫ লক্ষ টাকা দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল বিজেপি। যার কোনোটাই কার্যকর করেনি তারা। আবার এই অন্তর্বর্তী বাজেটের মাধ্যমে মানুষকে নতুন করে বোকা বানানোর চেষ্টা করছে তারা যাতে কখনোই আর সাফল্য পাবে না বিজেপি।

সিপিএম পলিটব্যুরো তরফে ২০১৯-২০ র অন্তর্বর্তী বাজেটকে আবার একটি নতুন জুমলার আখ্যা দেওয়া হয়েছে। বলা হয়েছে এই বাজেটের মাধ্যমে কষ্টে থাকা দেশবাসীকে শুধুমাত্র সোনালী ভবিষ্যতের স্বপ্ন দেখানো হয়েছে যা আসলে নিষ্ঠুর হাস্যকৌতুক ছাড়া কিছুই নয়।

কংগ্রেস নেতা মল্লিকার্জুন খাড়গে বাজেট সম্পর্কে প্রতিক্রিয়া গিয়ে বিজেপির জনমোহিনী বাজেটকে জুমলা বলে ব্যাখ্যা করেন। তার কথায় ভোট কে মাথায় রেখেই এই বাজেট তৈরি হয়েছে। তার দাবি এতে ভোটারদের ঘুষ দেওয়া হচ্ছে।

একেবারে ভোটের বাজেট বানিয়েছে প্রধানমন্ত্রীর নরেন্দ্র মোদি সরকার।এর প্রভাব পড়বে আসন্ন লোকসভা ভোটে। কেন্দ্রীয় বাজেট প্রস্তাবের পর এটাই প্রাথমিক প্রতিক্রিয়া ছিল প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিংয়ের। তার কথায় এই বাজেটে আয় করে অনেকটা ছাড় দিয়ে মধ্যবিত্তদের খুশি করা হয়েছে। কৃষক ও ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের খুশি করার চেষ্টা করা হয়েছে। খুশি করার চেষ্টা চালানো হয়েছে গ্রাম ভারতকে। এই বাজেটকে একেবারেই ভোটের বাজেট বলে ব্যাখ্যা করেছেন মনমোহন সিং।

বাজেট প্রসঙ্গে বিজেপির বিক্ষুব্ধ সাংসদ শত্রুঘ্ন সিনহা বলেছেন,” ইংরেজিতে একটা প্রবাদ রয়েছে, সব মানুষকে কিছু দিনের জন্য বোকা বানানো যায়। কিছু মানুষকে সব সময়ের জন্য বোকা বানানো যায়। কিন্তু সব মানুষকে সব সময়ের জন্য বোকা বানানো যায় না।

পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী কংগ্রেস নেতা ক্যাপ্টেন অমরেন্দ্র সিং বলেন, কৃষক যুব সম্প্রদায় কে ধোকা দেওয়া হয়েছে এই বাজেটে। তার দাবি মোদী সরকারের শেষ বাজেট সাধারণ মানুষের কাঁধের বোঝাটা আরো ভারী করে দিল।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *