কেন্দ্রীয় সরকারের বিলগ্নিকরণ নীতির বিরুদ্ধে এবার রাস্তায় শ্রমিক পরিবারের সদস্যরা

India News

নিউজ ফ্রন্টলাইনার ওয়েব ডেস্ক, ১৩ ই জুলাই:সেইলের তিনটি কারখানার বিলগ্নিকরনের সিদ্ধান্তের সাথে সাথেই আন্দোলন এর তীব্র হলো কারখানার এলাকায় গুলিতে, শ্রমিক সংগঠন গুলির যৌথ মঞ্চ প্রবল বিক্ষোভ কারখানায় পার্শ্ববর্তী অঞ্চলে। বিক্ষোভে উত্তাল হয়ে উঠেছে কারখানার গেট, এবার তামিলনাড়ুর সালেম এবং কর্ণাটকের ভদ্রাবতী কারখানার গেটে ও উত্তাল হল আন্দোলন।

শ্রমিক সংগঠনগুলোর দাবি অবিলম্বে বিক্রির সিদ্ধান্ত থেকে সরকার মত বদল করুক,সিদ্ধান্ত যতদিন বদল না হচ্ছে ততদিন আন্দোলন চালিয়ে যাবে বলে তারা ঘোষণা করেছে। আজ সালেম কারখানার গেটে থেকে এক বিশাল মিছিল সংঘটিত করে যৌথ শ্রমিক সংগঠন গুলি, মিছিলে উপস্থিত শ্রমিক পরিবারের সদস্যরা পরিবারের সদস্যদের হাতে প্ল্যাকার্ড নিয়েই এই মিছিল পুরো সালেম শহর প্রদক্ষিণ করল। পরিবারের কয়েকজন সদস্যদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায় কারখানা বন্ধ অথবা বিক্রি হলে পরিবার নিয়ে তাদের পথে বসতে হবে ,তাই তারা সরকারের কাছে দৃষ্টি আকর্ষণ করছে অবিলম্বে এই সিদ্ধান্ত থেকে সরকার বিরত থাকুক। কর্ণাটকের ভদ্রবতী কারখানাতেও একই কায়দায় আন্দোলনে শ্রমিক সংগঠন গুলি, সেখানেও এক বিশাল মিছিল সংঘটিত করে ভদ্রাবতী কারখানার শ্রমিকরা।প্রায় অর্ধ নগ্ন অবস্থাতেই শ্রমিকরা মিছিল করল, নেতৃত্বের দাবি বিগত বেশ কয়েক বছর ধরেই ভদ্রাবতী কারখানা রুগ্ন বারবার দাবি করা সত্ত্বেও নতুন করে কোনো বিনিয়োগ সরকার আনে নি।

সেইলের বিলগ্নীকরণ সিদ্ধান্তে ভদ্রাবতী কারখানার নাম উঠে এসেছে, তারা দাবি করেছে অবিলম্বে বিনিয়োগ বাড়িয়ে কারখানাটিকে স্বয়ংসম্পূর্ণ এবং আধুনিকীকরণ করতে হবে।কিন্তু সরকার কারখানাটি বিক্রি বা বন্ধের সিদ্ধান্ত নিয়েছে এর ফলে শহরে অর্থনৈতিক সঙ্কট ঘনীভূত হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। কাজ হারানোর আশঙ্কায় শ্রমিকরা প্রায় অর্ধ নগ্ন অবস্থাতেই মিছিল সংঘটিত করল।

নিন্দুকেরা বলে থাকে শ্রমিক সংগঠন গুলি কাজ না করার জন্যই নাকি শ্রমিকদের উৎসাহিত করে কিন্তু কারখানা বাঁচানো এবং কারখানাকে সম্প্রসারণের যে দাবি করছে শ্রমিক সংগঠন গুলি তা অবশ্যই এক নজিরবিহীন ঘটনা। তাদের বক্তব্য কারখানা সচল থাকলে নতুনভাবে কারখানায় কর্মসংস্থান তৈরি হয় বন্ধ করে দেওয়া হলে সেই কারখানা বন্ধের সাথে সাথে শহরের আর্থিক অবস্থা ও ভেঙে পড়ে তাই কোনভাবেই সরকারি সিদ্ধান্ত তারা মানতে পারছেন না।

শ্রমিক সংগঠনগুলি হুঁশিয়ারি দিয়েছে শেষ রক্ত বিন্দু দিয়েই এই আন্দোলন চলবে এবং সরকারি সিদ্ধান্ত বদলের জন্যই তারা লড়াই চালাবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *